মুজিববর্ষের উপহার ফুলপুরে ঘর পাবে গৃহহীন ৯৭ পরিবার

Phulpur-7.jpeg

এম এ মান্নান:
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী মুজিববর্ষ পালন উপলক্ষে সারা দেশে ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩টি গৃহহীন পরিবার আধা পাকা টিন শেড ঘর পাচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে ময়মনসিংহের ফুলপুরে ৯৭টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার ২শতাংশ করে ভূমি ও ঘর পাচ্ছে। গৃহহীনদের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উপহার হিসেবে এসব ঘর দিচ্ছেন। এ উপহার যাতে যথাযোগ্য ব্যক্তিরা পায় সেই লক্ষ্যে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার। ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার কামরুল হাসান ও জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান সম্প্রতি এসব গৃহ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেছেন। এ কাজ তদারকিতে ইউএনওকে সহযোগিতা করছেন, উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ, উপজেলা পরিষদ, জনপ্রতিনিধি, উপজেলা আওয়ামীলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকদের টিম। সরকারের এ কাজ দেখে শুধু সহায়সম্বলহীন অসহায় উপকারভোগীরাই নয় বরং খুশি প্রতিটি এলাকাবাসি। আজ মঙ্গলবার বিকালে উপজেলার ফুলপুর সদর ইউনিয়নে গৃহহীনদের জন্যে নির্মাণাধীন ঘর পরিদর্শনে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার, উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল করিম রাসেল, সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফাতেমা তুজ জোহরা, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, হেলডস্ ওপেন স্কাউট গ্রুপের সম্পাদক তাসফিক হক নাফিও প্রমুখ। তারা যাওয়ার পর এসব ঘরের হবু বাসিন্দারা ‘ধন্যবাদ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’ লেখা প্লেকার্ড উঁচিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। জানা যায়, আগামী ১০ জানুয়ারি সারাদেশে একযোগে এসব ঘর উদ্বোধন করা হবে। সেই লক্ষ্যে ফুলপুর উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নের খাস জমিতে নির্মাণাধীন ৯৭টি একক ঘরের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৫০ ভাগের বেশি কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বিভিন্ন জরিপের মাধ্যমে যাচাই বাছাই করে উপকারভোগীদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার। ভূমিহীন সাদেক মিয়া বলেন, আগে মাইনসের বাড়িত থাকতাম। অহন শেখ হাসিনা আমগরে নতুন ঘর-বাড়ি কইরা দিতাছে হুইন্যা খুব আনন্দ লাগতাছে। আমরা উনাকে ধন্যবাদ জানাই।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার উপহার গৃহহীনদের পুনর্বাসন কার্যক্রম দ্রুত গতিতে শেষ করতে উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন সর্বাত্মকভাবে তৎপর রয়েছে। সহকারী কমিশনার ভূমি ফাতেমা- তুজ-জোহরা বলেন, উপজেলার সদর ইউনিয়নের নগুয়া গ্রামে ৪৪টি, ভাইটকান্দিতে ৪টি, রহিমগঞ্জে ১০টি ও পয়ারী ইউনিয়নে ৮টিসহ মোট ৯৭টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাবৃন্দ ও উপজেলা ভূমি অফিস গৃহহীনদের এ ঘরগুলো নিখুঁতভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত তদারকি করে যাচ্ছে। উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল করিম রাসেল বলেন, গৃহহীনদের পুনর্বাসন নিশ্চিত করতে উপজেলা পরিষদ ও ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ সবসময়ই তৎপর রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার এ প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়নে উপজেলা প্রশাসন সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। আশা করছি, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই সবগুলো ঘরের নির্মাণ কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে।

Share this post

PinIt
scroll to top