ফ্রান্সে মহানবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে বাংলাদেশের নড়াইল গ্রামে ম্যাক্রোর কুশপুত্তলিকা দাহ

Haluaghat-Alisha-Pic0.jpg

এম এ মান্নান :
ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মুসলমানদের প্রাণের নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে বাংলাদেশের নড়াইল গ্রামে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোর কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট উপজেলার ৮নং নড়াইল ইউনিয়নের আলিশাহ বাজারে ২০২০ সনের ০৬ নভেম্বর শুক্রবার জুমার নামাজের পর ওই কর্মসূচি পালন করা হয়। এর আগে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। ৮নং নড়াইল ইউনিয়ন উলামা ঐক্য পরিষদ ও তাওহীদী জনতা এর আয়োজন করে। মিছিলটি খরমা বাজার থেকে শুরু হয়ে আলিশাহ বাজারের মধ্য দিয়ে রহেলা গ্রামের সীমানা পর্যন্ত যায় এবং সেখান থেকে ফিরে পুনরায় আলিশাহ বাজারের সবজি মহালে এসে শেষ হয়। এরপর সেখানে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ ও মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নড়াইল উলামা ঐক্য পরিষদের সভাপতি ফুলপুর দারুল ইহসান কাসিমিয়া এক্সিলেন্ট মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মো. আব্দুল মান্নান, সাধারণ সম্পাদক সালেহাতুল জান্নাত মহিলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আব্দুল মুনাঈম, খাদিমুল উলূম মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুফতী সাইম খান, একই মাদরাসার উস্তাদ হাফেজ আমিনুল ইসলাম, আতুয়াজঙ্গল তুফানিয়া মাদরাসার মুহতামিম হাফেজ রুহুল আমিন, পূর্ব নড়াইল তালীমুল কুরআন মাদরাসার মুহতামিম হাফেজ মাওলানা ইলিয়াস আহমাদ, কুমুরিয়া নয়াপাড়া মুনসিবাড়ি জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল মান্নান, আলিশাহ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি বিল্লাল হোসেন, কিসমত নড়াইল নিবাসী তরুণ সমাজসেবক আনোয়ার হোসেন মানিক, নিশ্চিন্তপুর চেয়ারম্যান বাড়ি মসজিদের ইমাম মাওলানা মুশাররফ হুসাইন, বাতাঘাটা জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুর রউফ, সুফিয়া খাতুন কওমী মহিলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা বখতিয়ার, নাজিমে তালীমাত হাফেজ মাওলানা সুহাইল আহমাদ, মাঝিয়াইল মাদরাসার হাফেজ মাওলানা মুক্তাদির হাসান, নিশ্চিন্তপুর পুরাতন মসজিদের ইমাম মাওলানা ইয়াসীন আরাফাত, চুপিনগর মসজিদের ইমাম হাফেজ মুজিবুর রহমান, আলিশাহ বাজার দারুল উলূম হামিদুন্নূর কওমী মাদরাসার নায়েবে মুহতামিম হাফেজ আলী আকবর, বাঘমারের হাফেজ শফিকুল ইসলাম প্রমুখ। বক্তারা বলেন, মহানবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে ফ্রান্স আমাদের হৃদয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। সেই আগুন ফ্রান্সকেই নেভাতে হবে। এছাড়া বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ফ্রান্সের ওই অপকর্মের নিন্দা জানাতে হবে এবং আমাদের নবীকে নিয়ে এ ধরনের ব্যঙ্গ বিদ্রুপ যাতে বাংলাদেশে কেউ না করতে পারে সেই লক্ষ্যে আইন প্রণয়ন করতে হবে। আর ফ্রান্সের সাথে কুটনৈতিক সম্পর্কসহ ফ্রান্সের সকল পণ্য রাষ্ট্রীয়ভাবে বর্জন করতে হবে। মিছিলে রাসূলের অবমাননা, মেনে নেওয়া হবে না। বিশ্বনবীর অবমাননা, সহ্য করা হবে না। ফ্রান্সের পণ্য কিনবো না, বেঁচবো না। ইসলামের শত্রুরা হুশিয়ার সাবধান ইত্যাদি বলে শ্লোগান দেওয়া হয়।

Share this post

PinIt
scroll to top