ফুলপুরে বাসস্ট্যান্ডের অভাবে যানজটে নাকাল যাত্রী সাধারণ

ppss53406.jpg

এম এ মান্নান :

ময়মনসিংহের ফুলপুরে সুনির্দিষ্ট বাসস্ট্যান্ড না থাকায় যত্রতত্র বাস ও যানবাহন থামিয়ে যাত্রী উঠা-নামা করায় যানজটে নাকাল যাত্রী সাধারণ। ঢাকা-হালুয়াঘাট মহাসড়কে বড় বড় বাস থামিয়ে যখন একের পর এক যাত্রী উঠা-নামা করা হয় তখন ওই রাস্তায় মূহুর্তেই শত শত গাড়ি আটকা পড়ে। বর্তমানে প্রচণ্ড এই গরমে হাঁপিয়ে পড়েন শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ যাত্রীরা। এমনকি রিকশা, অটো রিকশা ও সিএনজি চালিত ছোট গাড়িগুলোসহ ভ্যান ও মাহিন্দ্রগুলো এমনভাবে চাপিয়ে দাঁড় করে পথচারীরা পায়ে হেঁটেও তখন চলাচল করতে পারেন না। ফুলপুরে প্রতিদিন সকাল ১০/১১টা থেকে শুরু করে সন্ধা অবধি চলে এ দৃশ্য। তবে হঠাৎ জ্যামমুক্ত হয়। হলেও তা বেশি সময় স্থায়ী হয় না। এই জ্যাম নিরসনে আমরা বার বার লিখেছি কিন্তু প্রশাসনের আন্তরিকতা কম থাকায় তা নিরসন হচ্ছে না। ফুলপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে সরকারি কলেজ রোডস্থ বায়তুস্ সালাম জামে মসজিদে পায়ে হেঁটে আসতে যেখানে ৫ মিনিটের বেশি লাগে না সেখানে আজ দুপুরে এটুকু জায়গা রিকশায় আসতে সময় লেগেছে ১৫ মিনিট। গাড়ির বেসামাল অবস্থা দেখে একজন ট্রাফিক পুলিশ অসহায়ের মত কতক্ষণ দাঁড়িয়েছিলেন। যেন কিছুই করার নেই। চলন্ত পথে গতিরোধ হলে শরীর আরো ঘামে বেশি। কারো কারো মরণাপন্ন অবস্থার অবতারণা হয়। ফুলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানকে এই জ্যামে পড়ে অসহ্য হয়ে একাধিক দিন নিজের গাড়ি থেকে নেমে ট্রাফিকপুলিশের মত রাস্তা জ্যামমুক্ত করতে দেখা গেছে। আজ তারই পিএস সাগর মন্ডলকেও জ্যামে আটকে থাকতে থাকতে ট্রাফিক পুলিশের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায়। তাহলে এ অবস্থা থেকে সাধারণ জনগণ কি মুক্তি পাবে না? নির্মিত হবে না কি ফুলপুর বাসস্ট্যান্ড?

Share this post

PinIt
scroll to top