একমাত্র নির্বোধরাই প্রকৃত মানুষ চিনতে ভুল করে ও অবমূল্যায়ণ করে থাকে

20201005_181117-scaled.jpg

এম এ মান্নান :

একমাত্র নির্বোধরাই প্রকৃত মানুষ চিনতে ভুল করে। তারা অনেক সময় মানুষ না চিনে, তার কমদামী পোশাক বা কালো চেহারা দেখে অবমূল্যায়ণ করে থাকে। অথবা সব ঠিক থাকলেও না চেনার ভান করে যথাযথ মূল্যায়ণ করতে কৃপণতা করে থাকে। তবে নির্বোধরা যথাযথ মূল্যায়ণ না করলেও মন খারাপের কিছু নেই। এ বিষয়ে অনলাইন থেকে সংগৃহীত একটি সুন্দর ঘটনা তুলে ধরা হলো:

‘মৃত্যুর পূর্বে একজন পিতা তার সন্তানকে কাছে ডেকে বললেন, ‘এই নাও! এই ঘড়িটা আজ আমি তোমাকে দিলাম। আমাকে দিয়েছিলো তোমার দাদা। ঘড়িটা দুইশত বছর আগের। তবে ঘড়িটা নেওয়ার আগে তোমাকে একটা কাজ করতে হবে। ছেলেটি বললো, ‘কি কাজ?’ বাবা বললেন, ‘এই ঘড়িটা নিয়ে রাস্তার পাশের ঘড়ির দোকানে যাবে। তাদের বলবে যে এই ঘড়িটি তুমি বিক্রি করতে চাও’। ছেলেটি তা-ই করলো। ঘড়িটি রাস্তার পাশের একটি ঘড়ির দোকানে বিক্রি করতে নিয়ে গেলো। সে ফিরে এলে তার বাবা বললেন, ‘ঘড়ির দোকানদার কত টাকা দিতে চাইলো ঘড়ির বিনিময়ে?’ ছেলেটি বললো, ‘একশো টাকা মাত্র। ঘড়িটা নাকি অনেক পুরাতন, তাই’। বাবা বললেন, ‘এবার পাশের কফি শপে যাও। তাদেরকে বলো যে তুমি এই ঘড়ি বিক্রি করতে চাও’।

ছেলেটা তা-ই করলো। ঘড়িটি নিয়ে পাশের এক কফি শপে গেলো৷ ফিরে এলে বাবা জানতে চাইলেন, ‘কি বললো ওরা?’ ছেলেটি বললো, বাবা! ‘ওরা তো এটা নিতেই চাইলো না। বললো, এতো পুরনো, নোংরা ঘড়ি দিয়ে আমাদের কি হবে?’ বাবা হেসে দিয়ে বললেন, ‘এবার তুমি এই ঘড়িটি নিয়ে যাদুঘরে যাও। গিয়ে তাদের বলো যে, এই ঘড়িটি আজ থেকে দুইশ বছর আগের’।ছেলেটা এবারও তা-ই করলো। সে ঘড়িটি নিয়ে যাদুঘরে গেলো। ফিরে এলে তার বাবা বললেন, ‘কি বললো ওরা?’ ছেলেটি বললো, বাবা! ‘ওরা তো ঘড়িটি দেখে চমকে উঠেছে প্রায়!

তারা এই ঘড়ির দাম এক লক্ষ টাকা দিতে চাইলো’। ছেলের কথা শুনে বাবা হাসলেন। বললেন, ‘হে আমার সন্তান! আমি তোমাকে এটাই শিখাতে চাচ্ছিলাম যে, যারা তোমার মূল্য বুঝে না, তারা তোমাকে কিভাবে মূল্যায়ণ করবে? যারা তোমাকে চিনে তারা ঠিকই তোমাকে মূল্যায়ণ করবে। তাই যারা তোমাকে মূল্যায়ন করবে না তাদের ব্যবহারে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। হতাশ হয়ে পড়ো না। তারা তোমার মূল্য বুঝতে অক্ষম। তাই তারা তোমাকে মূল্যায়ণ করতে পারেনি। তুমি তাদের কাছে যেও না। বরং তাদের কাছেই যাবে যারা তোমার মূল্যায়ণ বুঝবে’।

Share this post

PinIt
scroll to top