বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে খুনের ঘটনায় চেয়ারম্যান গ্রেফতার

Irad-0603.jpg

এম এ মান্নান:
ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে আব্দুল কাদির মন্ডল (৬৫) নামে এক বৃদ্ধকে তুচ্ছ ঘটনায় খুনের অপরাধে স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার বিকালে উপজেলার স্বদেশী ইউনিয়নের গাজীপুর গ্রামে বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে ওই ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে নিহতের বড় ছেলে আব্দুল কাদির বাদী হয়ে ১৬জনকে আসামী করে হালুয়াঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। নিহত আব্দুল কাদির মন্ডল ওই গ্রামের হাজী আইয়ুব আলীর পুত্র। খবর পেয়ে হালুয়াঘাট সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ খলিলুর রহমান ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
স্থানীয়রা জানায়, ঘটনার দিন বিকেলে কংশ নদী থেকে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে উত্তোলিত বালু আনতে গাড়ি পাঠায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ। উত্তোলিত বালুগুলো নিহতের নিজস্ব জমিতে থাকার কারণে বাধা প্রদান করেন আব্দুল কাদির ও তার স্বজনরা।
এ খবর শুনে ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে দলবলে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে অর্তকিত হামলা চালায় তাদের উপর। পুলিশ ও পরিবারের সদস্যরা জানায়, হামলায় বাধা প্রদানকালে আব্দুল কাদিরকে ঘটনাস্থলে রাম দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার সহচররা । পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে আব্দুল কাদিরের মৃত্যু হয়।
জানা যায়, বাড়ির কাছে নাতনী নিয়ে বসা ছিলেন আব্দুল কাদির। পরে হঠাৎ স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার সংঙ্গীয় লোকজন অতর্কিত হামলা চালালে, তিনি বাধা দিতে গেলে তাকেও মারধর করেন। এ বিষয়ে হালুয়াঘাট থানার ওসি মাহমুদল হাসান জানান, অভিযুক্ত চেয়ারম্যান ইরাদ, সোহেল ও শাহজাহান নামের ৩ জনকে বুধবার রাতেই আটক করা হয়েছে । বাকীদের আসামীদের খুঁজছে পুলিশ। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে । উল্লেখ্য, চেয়ারম্যান ইরাদ এর আগে মাদক মামলায় দু’বার ও মারামারি করে একবারসহ মোট তিনবার গ্রেফতার হয়ে হাজত বাস করেছেন।

Share this post

PinIt
scroll to top