দেশকে উন্নত করতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষাকে উন্নত করতে হবে — প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন

Haluaghat-Pic-1.jpg

মো. আব্দুল মান্নান :
দেশকে উন্নত করতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষাকে উন্নত করতে হবে। এজন্যে মায়েদের ভূমিকা প্রথম ও মুখ্য। এরপর শিক্ষকদেরকেও মাতৃস্নেহ ও পিতৃস্নেহ দিয়ে শিশুদের পড়াতে হবে। ক্লাসে কোন ফাঁকি দেওয়া যাবে না। ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট ডিএস আলিম মাদরাসা ময়দানে শুক্রবার সকালে অনুষ্ঠিত মা সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন এসব কথা বলেন। ‘শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে প্রধান অতিথি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেন, প্রাথমিক শিক্ষাকে আমরা ঢেলে সাজাতে চাই। দেশকে উন্নত করতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষাকে উন্নত করতে হবে। প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে যা যা করা লাগে সবই করা হবে। এজন্যে মায়েদের ভূমিকা প্রথম ও মুখ্য। তাই আমি প্রথমে মা’দের নিয়ে বসেছি। শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, গভ:মেন্ট আপনাদের সবই দিচ্ছে। বেতন বৈষম্য দূর করা হবে। দ্বিতীয় গ্রেড বাস্তবায়ন করা হবে। কিন্তু আপনারা স্কুল ফাঁকি দিতে পারবেন না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সহযোগিতা করবেন। সঠিক সময়ে স্কুলে যাবেন। মাতৃ¯স্নেহ ও পিতৃ¯স্নেহ দিয়ে শিশুদের পড়াবেন। পাঠদানে অবহেলা করবেন না। শিক্ষকদের মর্যাদার মর্যাদার কথা উল্লেখ করে প্রধান অতিথি বলেন, এলাকার একটি সভায় আমার ছোটবেলার একজন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। আমি তার পা ছুঁয়ে সালাম করেছি। আদর্শ শিক্ষক মন্ত্রীর চেয়ে এমনকি রাষ্ট্রপতির চেয়েও বড়। আপনারা আদর্শ শিক্ষক হতে চেষ্টা করুন। আদর্শ শিক্ষক হতে পারলে মৃত্যুর পরও মানুষ আপনাদের মনে রাখবে । এরপর তিনি বলেন, প্রত্যেক স্কুলে বঙ্গবন্ধু কর্ণার করা হবে। সেখান থেকে শিশুরা বঙ্গবন্ধুকে জানতে পারবে।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক ড. সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস। মান সম্মত প্রাথমিক শিক্ষা অর্জনে সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণ ও সচেতনতামূলক মতবিনিময় সভা ও মা সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, বিশেষ অতিথি জাতীয় সংসদ সদস্য জুয়েল আরেং, প্রাথমিক শিক্ষা ময়মনসিংহ বিভাগীয় উপ-পরিচালক মো. আনোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির, জেলা শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ মোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ খান, মেয়র মো. খায়রুল আলম ভূঞা, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ, উপজেলা শিক্ষা অফিসার হোসাইন মোহাম্মদ ফারুক প্রমুখ।
এ সময় মাননীয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের সহধর্মিনী রাজিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুরাইয়া সুলতানা, হালুয়াঘাটের সহকারি কমিশনার (ভূমি) লুৎফুন্নাহার, প্রাথমিক শিক্ষা কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আনোয়ারুল হক তোতা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কবিরুল ইসলাম বেগসহ উপজেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান ও সহকারি শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন।
সভায় প্রধান অতিথির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বক্তারা বলেন, ময়মনসিংহ জেলায় মোট ২১৪২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে হালুয়াঘাট উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৬৫টি। আর শুধু হালুয়াঘাটেই ১৬১জন শিক্ষকের পদ খালি রয়েছে। প্রাক-প্রাথমিক শাখার জন্য অনেক বিদ্যালয়েই পৃথক ভবন নেই। রয়েছে বিভিন্ন বিদ্যালয়ে যাতায়াত সমস্যাসহ শ্রেণীকক্ষ সমস্যা। ওইসব সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়ে মাননীয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন আরো বলেন, বিশ্ব মানবতার মা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে যে নেত্রীকে তিনি আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি এই দেশটিকে একটি উন্নত দেশে পরিণত করতে চান। আর তা একমাত্র প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের মাধ্যমেই সম্ভব। তাই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর সব সমস্যাই পূরণ করা হবে। প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়ন ও এর প্রতি শিশুদের উদ্বুদ্ধ করতে সরকার প্রতি বছর ১ কোটি ৪০ লক্ষ শিশুকে উপবৃত্তি দিচ্ছে। শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি করেছে। অতএব, আপনারা সঠিক সময়ে স্কুলে যাবেন ও বেতনটা হালাল করতে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করবেন।
মা সমাবেশে কুরআন তিলাওয়াত করেন, গাঙিনারপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুসলেম উদ্দিন। গীতা পাঠ করেন, কুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শিউলী রানী সরকার আর বাইবেল থেকে পাঠ করেন কালিয়ানীকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নৃড়া চিরান। প্রধান অতিথিকে ফুলেল শুভেচ্ছা, মানপত্র ও নানা উপঢৌকন দিয়ে বরণ করা হয়। প্রধান অতিথির হাতে মানপত্র তুলে দেন, হালুয়াঘাট ডিএস আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল হাই। এ সময় মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য জুয়েল আরেংকেও মানপত্র প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন, হালুয়াঘাট (দক্ষিণ) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বুরহান উদ্দিন ও বীরগুছিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশিক মাহমুদ খান।

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top