শোকরিয়া : বাংলাদেশ প্রতিদিনে আজ পর্যন্ত আমার ২৪০টি নিউজ প্রকাশ হয়েছে — এম এ মান্নান

M-A-Mannan.jpg

আলহামদু লিল্লাহ। শোকরিয়াতান বলছি, গত ২০১৭ সনের ৩ মার্চে ৯নং পৃষ্ঠায় ‘ভিজিডি কার্ড ও চাল বিতরণ’ শিরোনামের নিউজ দিয়ে বাংলাদেশ প্রতিদিনে আমার প্রথম যাত্রা শুরু। এরপর ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি হিসেবে পত্রিকায় ও অনলাইনে চলতি ২০১৯ সনের ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত আমার মোট ২৪০টি লেখা প্রকাশিত হয়েছে। পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে পর পর ৬দিনে ৬টি নিউজ ও একই মাসে আমার সর্বোচ্চ ২৪টি নিউজ পাবলিশড হওয়ার রেকর্ড অর্জিত হয়েছে। এর মধ্যে বেশ কিছু অনুসন্ধ্যানী ও ফীচার নিউজ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ‘লোক দেখানো ব্রিজ, কালভার্ট যেন মরণ ফাঁদ, ১০ গ্রামের মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন মালিঝি নদীতে ছোট্ট একটি সেতু, সবজি সমৃদ্ধ ফুলপুরে নেই হিমাগার বিপাকে চাষীরা, ব্রিজ নয় যেন মরণ ফাঁদ, ফুলপুর মার্কাজ মসজিদ রাস্তার বেহাল দশা, বীজ সংকটে ফুলপুরে তরমুজ চাষে কৃষকদের অনাগ্রহ, আশপাশে কারেন্ট আইছে দেইখ্যা তাদেরও মন চায়, কংশের ভাঙনে দিশেহারা শতাধিক পরিবার রাইত অইলে হডাৎ কইলজার মধ্যে চেৎ কইরা উডে, ফুলপুরে ভাইটকান্দি বাজার রাস্তার বেহাল দশা, ফুলপুরের সেই সখল্যা কালভার্ট যেন মরণ ফাঁদ, পাড় না রেখে পুকুর খনন করায় রোডস এন্ড হাইওয়ের জায়গা বেদখল, ফুলপুরে ১২ বছরেও মেরামত হয়নি পলাশকান্দা ব্রিজ ও ফুজাইলের জীবনযুদ্ধ’ উল্লেখযোগ্য। এছাড়ও ‘শেখ হাসিনার দুই নয়ন বাংলাদেশের উন্নয়ন, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদকের পরোয়ানার প্রতিবাদে ফুলপুরে নিন্দা, বাঁচাও কৃষক বাঁচাও দেশ, ফুলপুরে কুকুরের উপদ্রব ভ্যাকসিন সংকট, আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ কেউ হারাতে পারবে না, বিপুল ভোটে জয় পেলেন শরীফ আহমেদ’ শিরোনামে মনে রাখার মত আমার বেশ কিছু নিউজ রয়েছে। এর পিছনে আমার বস শ্রদ্ধেয় বড়ভাই বাংলাদেশ প্রতিদিনের ন্যাশনাল ডেস্ক ইনচার্জ শাইখুল হাসান মুকুল ও বিজনিস এডিটর রোকনুজ্জামান অঞ্জন ভাইয়ের অবদান সবচেয়ে বেশি। এছাড়া স্থানীয় এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও, ওসিসহ স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ ও সোর্সরা আমাকে বিশেষভাবে হেল্প করেছেন। সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। পাশাপাশি জীবনের শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত যাতে লেখা চালিয়ে যেতে পারি এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকলের সাহায্য ও সহযোগিতা কামনা করছি।

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top