ধৈর্য্যধারণ করুন, পর্যায়ক্রমে সবাই পাবেন — মাহমুদুল হক সায়েম

Saem.jpg

এম এ মান্নান
ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ থেকে বরাবরের ন্যায় এবারও অনেকেই প্রচুর পরিমাণ বরাদ্দ পেয়েছেন। হালুয়াঘাট উপজেলার নড়াইল গ্রামের কৃতি সন্তান ১৪৬, ময়মনসিংহ-১, (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া) আসনের সাবেক এমপি ধারা ডিগ্রি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ (অব.) এমদাদুল হক মুকুলের একমাত্র পুত্র ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মাহমুদুল হক সায়েম এসব বরাদ্দ প্রদান করেন। এ বিষয়ে বঞ্চিতদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করলে তিনি বলেন, ধৈর্য্যধারণ করুন, পর্যায়ক্রমে সবাই পাবেন। জানা যায়, জেলা পরিষদ তহবিল থেকে হালুয়াঘাটের বিভিন্ন মসজিদ মাদরাসায় সম্প্রতি ১৯ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ১নং ভুবনকুড়া ইউনিয়নের ঝলঝলিয়া মহিলা মাদরাসায় ২ লক্ষ টাকা, ৪নং সদর ইউনিয়নের বেপারীপাড়া মাদরাসায় ১ লক্ষ টাকা, শহীদ স্মৃতি সংসদে ২ লক্ষ টাকা, মনিকুড়া জামে মসজিদে ১ লক্ষ টাকা, ৮নং নড়াইল ইউনিয়নের গোপিনগর জামে মসজিদে ২ লক্ষ টাকা, পূব নড়াইল দাখিল মাদরাসায় ২ লক্ষ টাকা, ৯নং ধারা ইউনিয়নের চাঁদশ্রী মাদরাসায় ২ লক্ষ টাকা, মাঝিয়াইল জামে মসজিদে ১ লক্ষ টাকা, ১০নং ধুরাইল ইউনিয়নের ডোবারপাড় মাদরাসায় ২ লক্ষ টাকা ও ১২নং স্বদেশী ইউনিয়নের বাউসা পূর্বপাড়া জামে মসজিদে ২ লক্ষ টাকা অনুদান দেওয়া হয়। এর আগে ধারা ডিগ্রি কলেজ ও কুমুরিয়া-নড়াইল উচ্চ বিদ্যালয়সহ উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পর্যাপ্ত বরাদ্দ দেওয়া হয়। জেলা পরিষদ সদস্য প্যানেল মেয়র মাহমুদুল হক সায়েম ওইসব বরাদ্দ বিতরণ করেন। খবর নিয়ে জানা যায়, বিভিন্ন মসজিদ মাদরাসায় প্রচুর বরাদ্দ দেওয়া হলেও বরাদ্দবঞ্চিত রয়েছে, তাঁর বাড়ি সংলগ্ন মধ্য নড়াইল মসজিদে আরাফাত। এছাড়া বরাদ্দ না পাওয়া বিষয়ে অভিযোগ ওঠেছে ৩নং কৈচাপুর ও ১১নং আমতৈল ইউনিয়ন থেকেও। কোন কোন মসজিদ মাদরাসা থেকে লক্ষ বা তারচে বেশি পরিমাণ টাকা জেলা পরিষদে জমা দেওয়া হলেও বছরব্যাপী অপেক্ষা করে তারা কোন বরাদ্দ পায়নি। ফলে ওইসব প্রতিষ্ঠানের বঞ্চিতদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। দেখা দিয়েছে এক ধরনের হতাশা। এ বিষয়ে তরুণ ও উদীয়মান আওয়ামী লীগ নেতা ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের প্যানেল মেয়র মাহমুদুল হক সায়েম বলেন, হতাশ হবেন না। ধৈর্য্যধারণ করুন। পর্যায়ক্রমে সবাই পাবেন।

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top