ফুলপুরে যানজট নিরসনে সেবা দিচ্ছে হেল্ডস ওপেন স্কাউট

Phulpur-Scout.jpg

এম এ মান্নান
ময়মনসিংহের ফুলপুরে বরাবরের ন্যায় এবারও পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে যানজট নিরসনে রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশের সাথে কাজ করছে হেল্ডস ওপেন স্কাউট গ্রুপ। ১১ জুন সোমবার থেকে তারা এ কাজে নামেন। ঈদের পর আরো ৩ দিন চলবে বলে জানান, ‘হেল্ডস’র সাধারণ সম্পাদক গ্রুপ লীডার তাসফিক হক নাফিও। তিনি বলেন, যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশের সহযোগিতায় স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ভাষা সৈনিক এম শামছুল হক চত্বর, বাসস্ট্যান্ড, থানা রোডের মাথায়, আমুয়াকান্দা ব্রিজ মোড়, দিউ বালিয়া মোড়সহ ফুলপুর উপজেলা সদরের বিভিন্ন পয়েন্টে যানজট নিরসনে আমরা ৩০ জন ছেলে কাজ করছি। এর পাশাপাশি বৃদ্ধ, শিশু ও অসুস্থদের রাস্তা পারাপারে সহযোগিতা, অতিরিক্ত বোঝা বহন ও অবলা পথচারীকে সঠিক পথ প্রদর্শনসহ নানা পথ সেবা দিয়ে যাচ্ছে আমাদের ১০ জন গার্ল ইন স্কাউট সদস্য। উপজেলার সাহাপুর গ্রামের ফজিলা খাতুন নামে একজন বৃদ্ধা বলেন, স্কাউটার মেয়েরা আমার বাজারের ব্যাগটা রিকশায় তুলে দেওয়ায় আমি খুশি হয়েছি। বালিয়া গ্রামের ইউসুফ বলেন, আগে বাস এসে দীর্ঘ সময় রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকত। স্কাউটদের ডিউটির ফলে এখন তা হ্রাস পেয়েছে। এরা ডিউটি না করলে রাস্তা দিয়ে হাঁটা যেত না। রোজা অবস্থায় প্রচন্ড রোদে রোডের কাজ আঞ্জাম দেওয়া বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে স্কাউটার আশা বলেন, শিশু, বৃদ্ধ, অপারগ ও অসহায়দের কাজে সহযোগিতা করতে পেরে ভাল লাগছে। এক প্রশ্নের উত্তরে স্কাউটার মারুফা বলেন, মানুষের সেবায় শ্রম দিতে পারা কষ্টের নয় বরং আনন্দের। স্কাউটারদের সেবাদান বিষয়ে অভিব্যক্তি জানতে ফুলপুর ওসি (ট্রাফিক) তাওহীদুর রহমানের নিকট বিকাল ৪টা ৪৯ থেকে ৫টা ৩৩’র মধ্যে ৮বার ০১৭১১১২৮৩৪২ নাম্বারে কল করা হয়। পরে ৫টা ৪২-এ সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে কল রিসিভ করতে ম্যাসেজ পাঠানো হয়। তারপর ৬টা ১০-এ আবার কল করেও তাকে পাওয়া যায়নি। অথচ প্রতিবারই মোবাইল বেজে বন্ধ হয়েছে। এর আগে গত বছর হেল্ডস’র গ্রুপ লীডার নাফিও ঈদ উপলক্ষে ডিউট পালন করতে গিয়ে একটা সমস্যায় পরে ওসি (ট্রাফিক) তাওহীদুর রহমানের সহযোগিতার জন্য বার বার মোবাইল করেও তাকে না পেয়ে অভিমানে ডিউট বন্ধ রেখেছিলেন তারা। তবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ফুলপুর থানা অফিসার ইন-চার্জ বরাবরই এর সম্পূর্ণ বিপরীত। তারা সব সময়ই স্বেচ্ছায় ওইসব সংগঠনকে উৎসাহ দান করে থাকেন। জরুরি মিটিংয়ে থাকলেও মোবাইল রিসিভ করে থাকেন। এমনকি বিশেষ কারণে মোবাইল রিসিভ করতে না পারলেও পরে কল ব্যাক করে খবর নিয়ে থাকেন। Phulpur UNO Muhammad Rashed Hossain Chowdhury said, `I am very much happy to see the enthusiasm to do something better for the well-being of the society in these little boys. Proud of you boys. Carry on with your good spirit. May Allah bless you. ‘

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top