ইংরেজির ডিকশনারী বলে খ্যাত উবায়দুর স্যার আর নেই

Ubaidur-sir.jpg

এম এ মান্নান
ইংরেজির ডিকশনারী বলে খ্যাত উবায়দুর রহমান স্যার আরে নেই। ২০ এপ্রিল ২০১৮ শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে গোদারিয়া গ্রামের নিজ বাড়িতে তিনি ইন্তিকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিঊন। পরদিন শনিবার সকাল ১০টায় গোদারিয়া মাদরাসা ময়দানে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় সাবেক এমপি হায়াতোর রহমান খান বেলাল, উপজেলা চেয়ারম্যান এড. আবুল বাসার আকন্দ, মেয়র আমিনুল হক, ফুলপুর ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ কাজী আব্দুস সাত্তার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহ কুতুব চৌধুর, বিএনপি নেতা এমদাদ হোসেন খান, পয়রী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান একেএম তোফাজ্জল হক, এক্সিলেন্ট স্কুল এন্ড মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দুল মান্নান, ছেলে আরিফ আহমেদসহ ভাই, বন্ধু, ছেলেরা ও উপজেলার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। তার নামাজে জানাজায় ইমামতি করেন গোদারিয়া মাদরাসার নূরানী হুজুর ক্বারী আবুল মনসুর । জানাজাপূর্ব সমাবেশ উপস্থাপনায় ছিলেন, গোদারিয়া মাদরাসার মুহতামিম শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল খালেক।
উবায়দুর স্যার ১৯৩৯ সনের ২ এপ্রিল ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার গোদারিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মৃত মোস্তাফিজুর রহমান ও মা মৃত মোছা. রোকেয়া খাতুন। তার লেখাপড়ার হাতে খড়ি হয় সঞ্চুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আপন মামা মরহুম শামছুল হকের নিকট। সেখানে অত্যন্ত সুনামের সাথে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে ভর্তি হন ফুলপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে। ওই স্কুল থেকে তিনি ১৯৫২ সনে গৌরবের সাথে ম্যাট্রিক পাস করেন। এরপর ময়মনসিংহ আনন্দ মোহন কলেজ থেকে প্রথম বিভাগে আইএ পাস করেন। গ্রাজুয়েশন ডিগ্রিও একই কলেজ থেকে অর্জন করেন। এরপর বওলা উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৯৫৬ সনে সহকারী শিক্ষক হিসেবে তার প্রথম কর্মজীবন শুরু হয়। চাকরি করাকালীন ফাঁকে ফাঁকে স্টাডি করে ঢাকা ধানমন্ডি কলেজ থেকে বিএড ও ১৯৮২ সনে বিসিএস (প্রশাসন)ও কমপ্লিট করেছিলেন উবায়দুর স্যার। এরশাদের আমলে ম্যাজিস্ট্র্যাট পদে অফার পেয়েও ঘুষজনিত কারণে যোগদান করেননি। উবায়দুর স্যার পাবনা, বগুড়া ও দিনাজপুর জেলার জেলা সঞ্চয় কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৬১ সনের দিকে ওই চাকরি ইস্তফা দিয়ে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার বিদ্যাগঞ্জ রাজুবালা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। এছাড়া শাকুয়াই উচ্চ বিদ্যালয়, পয়ারী গোকুল চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় হালুয়াঘাট পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, ফুলপুর গার্লস স্কুল ও রাংরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদসহ বিভিন্ন পদে চাকরি করেন। রাংরাপাড়ািউচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করাকালীন হালুয়াঘাট মহিলা ডিগ্রি কলেজে তিনি পার্ট টাইম ইংরেজি শিক্ষক হিসেবে ক্লাস নিতেন। ফুলপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে তিনি প্রায় ১৯ বছর শিক্ষকতা করেন। উবায়দুর স্যার একজন নিবেদিত প্রাণ ও ছাত্রদের প্রিয় শিক্ষক ছিলেন। ইংলিশে তার দক্ষতার কথা সর্বজনবিদিত। অধিক ইংরেজি জাননেওয়ালা বুঝাতে তাকে সবাই ডিকশনারী স্যার হিসেবে চিনতেন। বওলার আব্দুল আজিজ স্যার তার ইংরেজি শিক্ষার প্রধান গুরু ছিলেন। তার ছাত্রদের মধ্যে স্থানীয় পর্যায়ে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন হলেন, সাবেক এমপি শাহ শহীদ সারোয়ার, শাহ কুতুব চৌধুরী, মেয়র আমিনুল হক প্রমুখ। এছাড়াও তার ছাত্রদের মধ্যে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল, সচিব ও বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান রয়েছেন বলে জানা গেছে। রাংরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬/৭ বছর পূর্বে অবসর গ্রহণ করে বাড়িতে আসার পর দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকা অবস্থায় শুক্রবার ইন্তিকাল তিনি করেন । ১৯৫৪ সনে তিনি বিবাহ করেন। ৪ভাই ৪বোনের মধ্যে তিনি সবার বড় ছিলেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি ২ ছেলে ও ৩ মেয়ের জনক। মৃত্যুকালে তিনি ২ ছেলে ৩ মেয়ে ও ছাত্রছাত্রীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পরিবারের পক্ষ থেকে তার রূহের মাগফিরাত কামনা করা হয়।

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top