নজিবুল্লাহর অকৃত্রিম হাসি, ব্যবহার ও সততা মানুষকে কাছে টেনেছিল

Janaja-Nazibullah1.jpg

এম এ মান্নান
গাজীপুরের শ্রীপুর মাওনা থেকে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে স্বাধীনতার পর এসে বসতি গড়ে তুলেছিলেন মো. নজিবুল্লাহ সরকার।বাংলার উত্তর সীমানায় একেবারে ভারতের নিকটে নানা শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলেন তিনি। থাকার জন্য দেখার মত মাটির তৈরি দু’তলা বাড়ি তার। তিনি অত্যন্ত সৌখিন মানুষ ছিলেন। ছিলেন সুন্দর অবয়বের অধিকারী, সদালাপী সদা হাসিমুখের একজন মানুষ।তার অকৃত্রিম হাসি, ব্যবহার, সততা ও ন্যায়পরায়ণতা মানুষকে কাছে টেনেছিল। পরকে করেছিল আপন।নজিবুল্লাহ সমাজের জন্য কাজ করে গেছেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তার অবদান রয়েছে। এখানে তার কোন নিকটাত্মীয় না থাকলেও সবাই ছিল তার আত্মীয়। মানুষের সুখে দুখে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছিলেন তিনি। তিনি সাবেক মেম্বার ও ১নং ভূবনকূড়া ইউনিয়নের সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান ছিলেন।তিনি জাগো দলের সদস্য ছিলেন। আশপাশ এলাকার মাতাব্বরী তিনিই করতেন।মানুষ তাকে খুব শ্রদ্ধা করতেন, ভালবাসতেন ও মানতেন।কিন্তু এত কিছুর পরও নজিবুল্লাহ সরকারকে চলে যেতে হলো না ফেরার দেশে। তবে এতীম অনাথ ও অসহায়দের নজিবুল্লাহ যে সেবা দিয়ে গেছেন এর মাঝেই তিনি বেঁচে থাকবেন বহুকাল। দীর্ঘ অসুস্থতার পর নিজ বাড়িতেই তিনি আদরের জীবন সঙ্গীনী, ৪ছেলে, ৩মেয়ে ও নাতিনাতনীসহ অসংখ্য বন্ধুবান্ধব শুভাকাঙ্খী গুণগ্রাহী রেখে শুক্রবার বিকাল ৩টার দিকে দুনিয়া থেকে বিদায় নেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিঊন।নজিবুল্লাহ সরকারের ছোটবেলা কেটেছিল শ্রীপুরের মাওনায়। তার রক্ত সম্পর্কের আত্মীয়রা অনেকেই সেখান থেকে তাকে শেষবারের মত এক নজর দেখতে এসেছিলেন। শনিবার সকাল পৌনে ১২টার দিকে হালুয়াঘাটে তার নিজ বাড়ির আঙ্গিনা সংলগ্ন মাঠে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।বড় ছেলে সুদক্ষ লেখক ও সাংবাদিক। বহুল প্রচারিত প্রশংসিত ও জনপ্রিয় দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার হালুয়াঘাট উপজেলা প্রতিনিধি তিনি।তার বাবার মৃত্যুতে সমবেদনা জানাতে বৃহত্তর ময়মনসিংহের বিভিন্ন উপজেলা থেকে বিশিষ্ট বিশিষ্ট ও তারকা সাংবাদিকদের আগমন ঘটে তার বাড়িতে। দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার ব্যূরো চীফ ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আতাউল করিম খোকন, বাংলা ভিশন টিভির স্টাফ রিপোর্টার অমিত রায়, আলোকিত বাংলাদেশের জেলা কারেসপনডেন্ট আলহাজ্ব আদিলুজ্জামান আদিলসহ বরেণ্য অনুসরণীয় সাংবাদিকবৃন্দ জানাজায় শরীক হয়েছিলেন। এ ছাড়াও হালুয়াঘাট, ফুলপুর, গৌরীপুর, ত্রিশাল ও বিভিন্ন স্থান থেকে এসে উপস্থিত হন অনেক স্বনাম ধন্য সাংবাদিক ও গুণী মানুষেরা । জানাজায় যেন মানুষের ঢল নামে। বক্তব্য রাখেন, উসমান আলী মেম্বার, ধারা কলেজের অধ্যাপক সাংবাদিক খালেদ আহমেদ পনির, মো. শাকেরুল্লাহ, ইউপি চেয়ারম্যান সুরুজ আলী, মরহুমের শ্যালক মাওনা ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম খোকন প্রমুখ। শত কষ্ট ভারাক্রান্ত হৃদয় নিয়েও জানাজাপূর্ব সমাবেশ উপস্থাপনায় ছিলেন, মরহুমের বড় ছেলে সাংবাদিক মো. হাতেম আলী। জানাজার নামাজে ইমামতি করেন, স্থানীয় মসজিদের ইমাম হাফেজ বিল্লাল হুসাইন।বাড়ি সংলগ্ন মসজিদের পাশে তাকে দাফন করা হয়।তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করে বানী দিয়েছেন, এমপি জুয়েল আরেং, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সাবেক এমপি আফজাল এইচ খান, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আজগর প্রমুখ। পরিবারের পক্ষ থেকে তার রূহের মাগফিরাত কামনা করে সকলের দোয়া কামনা করা হয়েছে।
Students expect learning to happen at their fingertips, and they expect it to be essay writing personalized the way that all other aspects of their lives are personalized

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top