বাংলাদেশের একজন কৃতিসন্তান হাফেজ মাওলানা মুকিমের অভিব্যক্তি

malyesia1.jpg

এম এ মান্নান
বাংলাদেশের কৃতিসন্তান হাফেজ মাওলানা মুকিম আহমাদ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদের ছেলে। তিনি ছোটবেলায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার বিরাবোতে মাশরিকী জুট মিলস হাফিজিয়া মাদ্রাসায় অধ্যায়ণ করেছেন। সেখানে তার ভর্তি রোল ১৪ থাকলেও ক্লাস পরীক্ষায় তিনি বরাবরই ১ থাকতেন।তিনি খুবই বিনয়ী নম্রভদ্র ও অত্যন্ত ব্রিলিয়ান্ট স্টুডেন্ট ছিলেন। মাশরিকীতে কিছুদিন পড়ার পর তিনি খালুর কাছে ঢাকায় চলে যান। সেখানে আরবী মিডিয়ামে পড়াকালীন আদীব হুজুরের সুহবত লাভ করেন।ময়মনসিংহের মাখযানুল উলুম মাদ্রাসার পরিচালক আব্দুর রহমান হাফিজ্জি হুজুরের ছোটভাই ঢাকা কেন্দ্রীয় জেলখানা মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা আব্দুল হক তার খালু এবং ঈশ্বরগঞ্জের পীর মাওলানা হুসাইন আহমাদ তার নানা ছিলেন।তিনি খালুর বাসায় থেকে ঢাকা কলেজেও পড়াশুনা করেছেন।পরে স্টুডেন্ট ভিসায় মালয়েশিয়া ইউনিভার্র্টিতে অধ্যায়ণ শুরু করেন। পাশাপাশি সেখানে একটি প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করেন। সেই প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের সম্বন্ধে তার অভিব্যক্তি তুলে ধরা হলো :

আলহামদুলিল্লাহ!আমার ছাত্ররা International University of Africa সুদানের খার্তুমে full scholarship নিয়ে যাচ্ছে।ইনশাআল্লাহ প্রতিবছরই আমাদের মাহাদ থেকে পাঁচজন যেতে পারবে। মুআ”দালা হয়েছে। আজ থেকে আড়াই বছর আগে আমি যেদিন প্রথম এই মাহাদে শিক্ষকতা শুরু করি তখন প্রবাসী জীবনে ওরাই ছিল আমার প্রথম ছাত্র। দুইজন পুরাতন ছাত্র ইয়েমেনে ফেরত গেছে ।আমি প্রথম ক্লাসে গিয়ে বুঝলাম ওরা বাংলা-ইংরেজি কোনটাই ভাল বুঝে না। বিষয়টি প্রিন্সিপাল হুজুরকে জানালে তিনি আমাকে বলেছিলেন, তিনি চায়নিজ স্কুলে পড়েছেন অথচ চায়নিজ কিছুই জানতেন না। ইংলিশ মিডিয়ামে পড়লে ইংলিশ না জানলেও ইংলিশেই ক্লাস করতে হয়। আমাদেরও তাই করতে হবে। আল্লাহর উপর ভরসা করে আমার প্রিয় উস্তাদ আদীব হুজুরের ন্যায় ক্লাস শুরু করেছিলাম। আমার অনেক অযোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও আমি চেষ্টা করেছি। আলহামদুলিল্লাহ, ভিয়েতনামের একটি ছেলে মাত্র দুবছরে আমাকে মুগ্ধ করেছিল। আমি যখন দেখতাম ওরা আল্লাহর কথাগুলো নিজে নিজে বুঝতে পারছে তখন আমার হৃদয় মন ভরে যেত। শুধু মনে পড়তো আমার প্রাণাধিক প্রিয় উস্তাজ আদীব হুজুরের কথা । আদীব হুজুরের শিখানো পদ্ধতি মাশক করাতে করাতে ওরা সবাই এখন আদীব হুজুরক চিনে । ওরা সুদানের খার্তুমে চান্স পেয়েছে তবে বাংলাদেশও ওদের স্বপ্ন ছিল । আদীব হুজুরের রুহানী সন্তানরা আজ সারা পৃথিবীময় । আলহামদুলিল্লাহ, ওদের বিদায় জানাতে গিয়ে আজ বুঝেছি, শুধু আমিই ওদের ভালবাসি না ওরাও আমাকে অনেক ভালবাসে। আমার চোখের জল আজ আর আড়াল করতে পারিনি । বারবার যখন ক্যামেরা ঘুরছিল প্রিয় শিক্ষকের স্মৃতি বয়ে নিতে, আমি দেখছিলাম ওদের স্বপ্নাল চোখে বিরহের অশ্রু । ওদের কারও কারও সাথে আমার বয়সের খুব একটা তফাৎ ছিল না। তবু আমার প্রতি শ্রদ্ধা ছিল অগাধ।শহরের কোলাহল ছেড়ে পাহাড়ের কোলে এসে পড়ে থাকি শুধু এই স্বপ্নগুলো নিয়ে । অনুভব হয়, রব্বে কারীমের কথাগুলো অন্যকে বোঝাতে পারার মধ্যেই যেন পৃথিবীর সকল সুখ।
Price free developer antonio giarrusso starwalk starwalk many mobile spy of you will already be familiar with starwalk, its particular brand of educational enlightenment was touted in some of the earliest ipad commercials

Share this post

PinIt
mamannan537

mamannan537

I'm M A Mannan. I'm a founder principal of Excellent School & Madrasah It's new name is Darul Ihsan Qasimia (Excellent) Madrasah. It's situated at Phulpur in Mymensingh. I'm also a journalist. I write in The Daily Tathyadhara, The Dainik Bangladesher Khabor and Bangladesh Pratidin.

scroll to top