হালুয়াঘাটের সাবিনার লাশ ফুলপুর হাসপাতালে রেখে পালিয়েছে তার কথিত প্রেমিক

Sabina.jpg

এম এ মান্নান :
ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের সাবিনার লাশ ফুলপুর হাসপাতালে রেখে পালিয়েছে তার কথিত প্রেমিক কামরুল ইসলাম। বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। জানা যায়, সাবিনা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে নিয়ে প্রেমিক কামরুল, তার বাবা আব্দুল বারেক, মা ফিরোজা খাতুন ও আরো কয়েকজন মিলে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে নেওয়ার পর সাবিনা মারা গেলে মা ফিরোজা খাতুনকে রেখে প্রেমিক কামরুল ও অন্যরা পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সাবিনার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় ও প্রেমিক কামরুলের মা ফিরোজা খাতুনসহ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করে।
প্রেমিক কামরুল ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার রহিমগঞ্জ ইউনিয়নের মাটিচাপুর গ্রামের আব্দুল বারেকের ছেলে ও প্রেমিকা সাবিনা (১৭) একই জেলার হালুয়াঘাট উপজেলার নড়াইল ইউনিয়নের কুমুরিয়া (বস্তিপাড়া) গ্রামের লিয়াকত আলী খাঁর মেয়ে। তারা দুজনই গাজীপুর কোণাপাড়া রোডে নাওজোড়া এলাকায় মাস্টার সেন্ট নামে একটি গার্মেন্টে কাজ করতো। সে সুবাদে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়।
সাবিনার বাবা ভ্যানচালক লিয়াকত আলী খাঁ বলেন, তাদের ওই সম্পর্কের বিষয়টি আমরা কেউ জানি না। আমার ধারণা, মেয়েকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়েছে। মা গৃহপরিচারিকা বেগম, বড়বোন গার্মেন্টকর্মী রুনা ও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী বড়ভাই কামালের সাথে সাবিনা গাজীপুরের তেলিপাড়ায় থাকতো। তারা জানান, প্রতিদিনের ন্যায় মঙ্গলবার সকালে সাবিনা গার্মেন্টে যায়। নির্ধারিত সময়ে বাসায় না ফিরলে পরিবারের সদস্যরা তাকে খোঁজাখুজি করতে থাকে। কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। এরই মধ্যে বুধবার মধ্যরাতে ফুলপুর থানা থেকে সাবিনার মৃত্যু সংবাদ দিয়ে মোবাইল করা হয়। এরপর সাবিনার পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি ইমারত হোসেন গাজী বলেন, সাবিনার লাশে আমরা কোন আঘাত বা চিহ্ন খুঁজে পাইনি। ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মেডিকেল রিপোর্টের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এছাড়া এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রেমিক কামরুলের মা ফিরোজা খাতুনসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

Top