ফুলপুরের খরিয়া নদী থেকে মাছ ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

Kazol.jpg

এম এ মান্নান :
ময়মনসিংহের ফুলপুরে কাজল (২৩) নামে এক মাছ ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে পয়ারী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান একেএম তোফাজ্জল হকের বাড়ি সংলগ্ন খরিয়া নদী থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। সে দিউ বেপারী পাড়ার মাছ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলামের ছেলে।
জানা যায়, শুক্রবার রাত ৮টার পর থেকে তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরদিন শনিবার খরিয়া নদীতে নৌকা বাইচ খেলতে গেলে ছোট ছেলেরা তার লাশ দেখতে পায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ কাজলের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসির ধারণা, শুক্রবার রাতে কে বা কাহারা তাকে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে রাখে। ওসি মেহেদী হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

এদিকে, সরেজমিন পরিদর্শনে গেলে নজরে পড়ে করুণ দৃশ্য। কাজলের মা-বাবা ও আত্মীয় স্বজনরা কান্নাকাটি করে বার বার মুচেড়ে যাচ্ছিল। আহাজারিতে আকাশ বাতাস তখন ভারি হয়ে ওঠে। ৫ ভাইয়ের মধ্যে সে ৪র্থ। তার বড়ভাই হেনজাল জানায়, বছরখানেক আগে কাজলের বিয়ে হয়। তার স্ত্রী আট মাসের গর্ভবতী। শুক্রবার রাতে পাশের বাড়িতে ক্যারাম খেলতেছিল। হঠাৎ ওখান থেকে তাকে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে আত্মীয় স্বজনসহ বিভিন্ন স্থানে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলেও তার বন্ধ পাওয়া যায়। তার বাবা শফিকুল ইসলাম বলেন, অনেক খোঁজাখুজির পর তাকে না পেয়ে ঘরের দরজা খোলা রেখে আমরা ঘুমাইয়া পরছি। মনে করছি ছেরা কইবাইন গেছে। একটু পরে তো আইবোই। অহন দেহি আমার ছেরার লাশ। হায়রে কি অইলো? তার মা আমেনা বিলাপ করছিল আর বলছিল, আমার বাবা আমারে কইছে, মায়া আমি দোহানতে আয়ি। এইডা কইয়া আমার জালের দোহানো ক্যারাম বোড খেলতেছিল। এনতে হে উধাও অইয়া গেছে। হায়রে কই গেল? আমি এই দু:খ কই থইয়াম?

Top