মাত্র কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে ফুলপুরে দুই অপমৃত্যু

Phulpur-Pic-Sukonna.jpg

এম এ মান্নান :
ময়মনসিংহের ফুলপুরে খাদিজা (২১) নামে এক গৃহবধুকে শনিবার ভোর পৌনে ৫টায় তার স্বামী খলিলুর রহমান ও শ্বাশুড়ি আনোয়ারা খাতুন ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ সংবাদ শোনার পর স্বামী খলিলুর রহমান হাসপাতাল থেকে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে ফুলপুর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে ও প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খাদিজার শ্বাশুড়ী আনোয়ারা খাতুনকে আটক করে। পলাতক স্বামী খলিলুর রহমানের বাড়ি উপজেলার বাতিকুড়া গ্রামে। সে শেরপুরের নকলায় এক মসজিদের ইমাম বলে জানা গেছে।
এর আগে শুক্রবার বেলা ২টার দিকে ফুলপুর পৌর শহরের সাহেব রোডে সুকন্যা (১৩) নামে এক স্কুল ছাত্রী ফ্যানের সাথে জড়িয়ে আত্মহত্যা করার ঘটনা ঘটে। সে ওই রোডের মারুফের একমাত্র কন্যা ও ফুলপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী। তার বাবা জুমার নামাজ পড়তে মসজিদে গেলে ও মা ইয়াসমিন ঈদের মার্কেট করতে গেলে এ ঘটনা ঘটে বলে সূত্র জানায়। সুকন্যাকে ময়না তদন্ত ছাড়াই দাফনের জন্য দিনব্যাপী তদবির করলেও তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি। পরে জেলা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসএ নেওয়াজী ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়িতা শিল্পী ফুলপুর থানায় এসে রাত ১২টার দিকে সুকন্যার লাশ ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণের নির্দেশ দেন। এ ঘটনার পর রাত না পোহাতেই উপজেলার বাতিকুড়া গ্রামে আরেক অপমৃত্যুর ঘটনা ঘটে। ওসি মেহেদী হাসান (ভারপ্রাপ্ত) ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সুকন্যা ও খাদিজার লাশ ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলেই প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

Top