ফুলপুরে কর্জে হাসানা হিসেবে অসহায় কৃষকদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ

Phulpur-Farmer.jpg

এম এ মান্নান
ময়মনসিংহের ফুলপুরে অসহায় দরিদ্র ক্ষুদ্র কৃষক ও বর্গাচাষীদের মাঝে কর্জে হাসানা হিসেবে কৃষক সহায়তা তহবিল বিতরণ করা হয়। বৃহস্পতিবার বাদ যুহর ফুলপুরস্থ গ্রামাউস কার্যালয়ে গ্রামাউস, সাংবাদিক ও স্থানীয় সুধীজনের আয়োজনে ৪৫ জন কৃষকের মাঝে ৫ থেকে ৮ হাজার টাকা করে ওই তহবিল বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের সদস্য গ্রামীণ মানবিক উন্নয়ন সংস্থা (গ্রামাউস)’র নির্বাহী পরিচালক আব্দুল খালেক। অনুষ্ঠানে সিনিয়র সাংবাদিক নুরুল আমিন, খলিলুর রহমান ও রবিউল করিম রবিসহ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, হাফেজ মাওলানা মুজিবুর রহমান, মাওলানা আব্দুল খালেক, মাওলানা জয়নুল আবেদীন, মাওলানা আব্দুর রহমান প্রমুখ। বোরো ধানের মূল্য বর্তমানে কম হওয়ায় জরুরি প্রয়োজন মেটানোর জন্য ক্ষুদ্র চাষীদের মাঝে কর্জে হাসানা হিসেবে ঋণ প্রদান করা হয়। আড়াই থেকে তিন মাসের মধ্যে এ ঋণ পরিশোধ করতে হবে। এ বিষয়ে কুরআন ও হাদীসের আলোকে উপস্থিত উলামায়ে কেরাম গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন। তারা বলেন, কর্জে হাসানা দেওয়া ও নেওয়া উভয়টাতেই সাওয়াব রয়েছে। কর্জে হাসানা বা উত্তম ঋণ দেওয়ার জন্য ইসলামে উৎসাহ প্রদান করা হয়েছে। যে এই ঋণ নিল তাকে উহা সময়মত পরিশোধ করার প্রতি তাগিদ দেওয়ার পাশাপাশি যে এই ঋণ দিল তাকেও এ বিষয়ে কোন খোঁটা না দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। মানুষ টাকা ধার নিয়ে আর দিতে চায় না বলে সমাজ থেকে এ কর্জে হাসানা প্রথা বিলুপ্ত প্রায়। গরিব কৃষকদের প্রতি মমতাবোধ থেকে গ্রামাউস ও সাংবাদিকদের উদ্যোগে তহবিল সংগ্রহ করে তা আবার চালু করা হয়। সস্তার বাজারে যাতে কৃষকের ধান বিক্রি করতে না হয় সেই লক্ষ্যে তাদের মাঝে এ কর্জ প্রদান করা হয়। ধানের দর বাড়লে তারা যাতে বাড়তি দরটা পান এবং তখন সময়মত এ কর্জ পরিশোধ করে দেন সেই প্রতিশ্রুতি নিয়ে এ কর্জে হাসান বিতরণ করা হয়েছে। উপস্থিত উলামায়ে কেরাম কর্জে হাসানার প্রয়োজনীয়তা ও উপকারিতা বয়ান করেন। আড়াই থেকে তিন মাসের মধ্যে এ কর্জ পরিশোধের জন্য তাগিদ প্রদান করা হয়। বক্তব্যে বলা হয়, এবার পরীক্ষামূলক অল্প পরিসরে ১০০ জন কৃষকের মাঝে উহা বিতরণ করা হবে। যদি গ্রহীতারা তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে সময়মত উহা পরিশোধ করে দেন তবে পরবর্তীতে এর পরিমাণ আরো বাড়ানো হবে।

Top